দু-দেশের সম্পর্কের গুরুত্ব জানাল ভারত

প্রকাশিত: ১১:১০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০২০

দু-দেশের সম্পর্কের গুরুত্ব জানাল ভারত

গত বছর ঠিক এ সময়টাতেই ঢাকা এসেছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর। তখন ভারতে নরেন্দ্র মোদির সরকার দ্বিতীয়বার সরকার গঠন করেছে। সেই সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে জয়শঙ্কর এসে সুসম্পর্ক অব্যাহত রাখার বার্তা দিয়েছিলেন।

এ বছর আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহে ভারতের পররাষ্ট্রসচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা যখন ঢাকা সফর করেছেন, তখন এই অঞ্চলসহ বৈশ্বিক পরিস্থিতি পুরোপুরি ভিন্ন। দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের উষ্ণতা আছে। কিন্তু কভিড-১৯ মহামারির কারণে সরাসরি যোগাযোগ নেই বললেই চলে। এরই মধ্যে ভারতের পররাষ্ট্রসচিব এসে জানালেন, বাংলাদেশ তাঁদের কাছে অগ্রাধিকার।

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, ‘‘কভিডের সময় বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক যেহেতু স্বাভাবিক নেই, সেটার একটা ‘ব্রেক থ্রো’ হিসেবে দেখছি এই সফরকে। উনি (শ্রীংলা) স্বয়ং মোদি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্করের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই এ সফর করেছেন। কভিডের পর এটিই তাঁর প্রথম বিদেশ সফর।’

পররাষ্ট্রসচিব জানান, ‘তিনি (হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা) আমাকে নয়াদিল্লিতে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের নেতৃত্বে যৌথ পরামর্শক কমিশনের (জেসিসি) বৈঠকের আগেই এ সফরে যেতে হবে। দুই দেশের মধ্যে এ ধরনের বৈঠক স্বাভাবিক সময়ে অনেক হতো। হয়তো তিনি আরো আসতেন। আমিও অনেকবার যেতাম। কভিডের কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে তাঁরা এতটাই গুরুত্ব দেন যে তাঁরা বাংলাদেশকেই বেছে নিয়েছেন। এই বার্তাটি দিয়ে তাঁরা সম্পর্ককে আরো বেগবান করতে চান।’

কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, বিশ্বের অনেক দেশের মতো বাংলাদেশও কভিড ভ্যাকসিন পাওয়া নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে। ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে যাঁরা চেষ্টা করছেন তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে। বিশ্বের মোট ভ্যাকসিনের ৬০ শতাংশ উৎপাদন হয়ে থাকে ভারতে। কভিড ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেও ভারতের কাছ থেকে বাংলাদেশের বড় সহযোগিতা পাওয়ার সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশও এ বিষয়ে আগ্রহী।

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন বলেছেন, ট্রায়ালসহ কভিড ভ্যাকসিন উৎপাদন প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে বাংলাদেশ প্রস্তুত। ভারতের ওই ভ্যাকসিন চূড়ান্ত হলে বাংলাদেশও তা পেতে চায়। অন্যদিতে ভারতের পররাষ্ট্রসচিব শ্রিংলার কণ্ঠেও ছিল ইতিবাচক সুর। তিনি এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশসহ প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগের আগ্রহ প্রকাশ করেন।

জানা গেছে, ভারতে সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের দাম তুলনামূলক কম হতে পারে। ভারতের পররাষ্ট্রসচিবের এ সফর ওই দেশটির ‘ভ্যাকসিন কূটনীতির’ অংশ বলেও অনেকে মনে করছেন। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ভ্যাকসিন নিয়ে দুই দেশেরই আগ্রহ আছে। তবে এই সফরে বিশেষ বার্তাটি সম্পর্ক আরো এগিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতীয় এক কূটনীতিক বলেন, বিশেষ এ সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়ার আগ্রহই ছিল এই সফরের বড় বার্তা।

জানা গেছে, সীমান্ত হত্যার মতো উদ্বেগের ইস্যু তুলে ধরেছে বাংলাদেশ। ভবিষ্যতে এ বিষয়ে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীগুলোর মধ্যে আলোচনা হবে। পাশাপাশি তিস্তাসহ অভিন্ন নদ-নদীগুলোর পানি বণ্টনের ক্ষেত্রেও অগ্রগতির প্রত্যাশায় আছে বাংলাদেশ।


এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ